Sunday, November 26, 2017

মাদারীপুর জেলার ইতিহাস





মাদারীপুর জেলার ইতিহাস


আজকে ছোট একটি অার্টিকেল লিখে প্রিয় পাঠকদের দৃষ্টিতে আনতে চেষ্টা করলাম।মাদারীপুর জেলা মূলত সাবেক ফরিদপুর জেলার অন্তর্গত মাদারীপুর থানা ছিল। বহু ইতিহাস ও গুনি ব্যক্তির স্বাক্ষী এই জেলাটি। মানুষের মন যেমন বড় তেমনি জেলাটি বেশ সমৃদ্ধ।
মাদারীপুর

ভৌগলিক সীমানা - 23-00 উত্তর অক্ষাংশ এবং 89-56 পূর্ব দ্রাঘিমাংশ পর্যন্ত এই জেলাটির বিস্তার। জেলাটির উত্তরে ফরিদপুর ও মুন্সিগঞ্জ, পূর্বে শরীয়তপুর, পশ্চিমে ফরিদপুর ও গোপালগঞ্জ এবং দক্ষিণে গোপালগঞ্জ ও বরিশাল।

আয়তন                     -   1,144.96 ববর্গকিলোমিটার।
জনসংখ্যা                  -   এই জেলায় মোট জন সংখ্যা ১২,১২,১৯৮ জন  ( আদমশুমারি - ২০১১ ইং)
এদের মধ্যে পুরুষ     -   50.29%  এবং মহিলা - 49.71%

নামকরণ                -  পঞ্চদশ শতাব্দীর সুফি সাধক " হযরত বদিউদ্দীন জিন্দা শাহ মাদার (রঃ) এর নাম অনুসারে জেলাটির নামকরণ করা হয় মাদারীপুর।

প্রশাসনিক এলাকা    -   মাদারীপুর জেলায় ৩ টি সংসদীয় আসন আছে। ৪ টি উপজেলা, ৫ টি থানা, ৪ টি পৌরসভা, ৫৯ টি ইউনিয়ন পরিষদ, গ্রাম ১০৬২ টি, মৌজা ৪৭৯ টি।

প্রধান কৃষি পন্য         -   ধান, পাট ও সরিষা জন্মে এই জেলায়।
জলবায়ু - বৃষ্টিপাত 2105 মিলিমিটার বাৎসরিক। তাপমাত্রা সর্বোচ্চ গড় 35.7 ডিগ্রী সেলসিয়াস এবং  সর্ব নিম্ন তাপমাত্রা 12.6 ডিগ্রি সেলসিয়াস। আর এই জেলার আবহাওয়া অত্যান্ত সুন্দর ও স্বস্থকর।

নদীসমূহ                   -   প্রিয় মাদারীপুর জেলায় প্রায় ১০ টি নদী আছে। এগুলি হল ঃ পদ্মা, আড়িয়াল খা, কুমার, বিষারকান্দি, টর্কি, পালাদি, মাদারীপুর, বিলরুট চ্যানেল এবং ময়নাকাটা।

                   মাদারীপুর এর কৃতি সন্তান - 

* শাহমাদার (১৩-১৪ শতাব্দী) - প্রখ্যাত সূফী সাধক।

* কেদার রায় (১৫ শতাব্দী) বার ভূঁইয়ার অন্যতম ও বিক্রমপুর পরগনার জমিদার।

* আলাওল (১৫৯৭-১৬৭৩) মহাকবি।

মাদারীপুর
* রাজা রাম রায় চৌধুরী (১৬ শতাব্দী) - রাজৈর থানার খালিয়া অঞ্চলের জমিদার।

* হাজী শরীয়তুল্লাহ (১৭-১৮৪০) - ধর্মীয় সংস্কারক ও ফরায়েজি আন্দোলনের প্রতিষ্ঠাতা।

* মৌলবী আব্দুল জব্বার ফরিদপুরি ( ১৮০১-১৮৭৬) - বিশিষ্ট উর্দু কবি ও লেখক।

* পীর মুহসীন উদ্দিন দুদু মিয়া ( ১৮১৯-১৮৬২) - ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলন ও ফরায়েজি আন্দোলনের অন্যতম নেতা।

* অম্বিকাচরণ মজুমদার ( ১৮৫১-১৯৫২) - বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ ও সমাজসেবক, ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস এর সভাপতি (১৯১৬)

* সূফী আমির শাহ (মৃত্যু ১৯৪৪) - প্রখ্যাত আধ্যাত্মিক সাধক।

* পুলিন বিহারী দাস (১৮৭৭-১৯৪৯) - ব্রিটিশ বিরোধী সন্ত্রাসবাদী আন্দোলনের ঢাকা অনুশীলন সমিতির প্রধান (১৯০৭-১০)

* কিরণ চাঁদ দরবেশ (১৮৭৮-১৯৪৬) - স্বদেশী যুগের রাজনৈতিক কর্মি, কবি,গীতিকার ও সাহিত্যিক।

* আবা খালেদ রশিদ উদ্দিন (১৮৮৪-১৯৫৬) - বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ ও রাজনীতিবিদ।

* পূর্ন চন্দ্র দাস ( ১ জুন ১৮৯৯ - ৪ঠা মে ১৯৫৬) - ভারতীয় উপমহাদেশের ব্রিটিশ বিরোধী স্বাধীনতা আন্দলনের একজন ব্যক্তিত্ব ও অগ্নি যুগের বিপ্লবী।

* চিত্তপ্রিয় রায় চৌধুরী (১৮৯৪-১৯১৫) - মাদারীপুর সমিতি ও যুগান্তর বিপ্লবী, বালেশ্বর রণাঙ্গনে সম্মুখ যুদ্দে শহীদ।

* নীরেন্দ্র নাথ দাশ গুপ্ত ( ১৮৯৫-১৯১৫) - মাদারীপুর সমিতি ও যুগান্তর বিপ্লবী, বালেশ্বর কারাগারে ফাসির মঞ্চে শহীদ।

* মনোরঞ্জন সেনগুপ্ত (১৮৯৮-১৯১৫) - মাদারীপুর সমিতি ও যুগান্তর বিপ্লবী, বালেশ্বর কারাগারে ফাসির মঞ্চে শহীদ।

* স্বামী প্রণবানন্দ মহারাজ ( ১৮৯৬-১৯৪১) - স্বদেশি যুগের বিশিষ্ট বিপ্লবী ও বীর সাধক।

* খান বাহাদুর আব্দুর রহমান খাঁ ( ১৮৯০-১৯৬৪) - বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও সাহিত্যিক, যুক্ত বংগের এ.ডি.পি.আই  (১৯৩৯-৪৫), জগন্নাথ কলেজ এর প্রিন্সিপাল (১৯৪৮-৫৬) ও রেক্টর (১৯৫৬)।

* আলিমুদ্দিন আহম্মদ খাঁন সাহেব (১৮৯০-১৯৫৭) - মোক্তার ও বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ।

* ডাঃ জোহরা কাজী (১৯১২-২০০৭) - ভারতীয় উপমহাদেশের প্রথম মহিলা চিকিৎসক।

* মুন্সী মোজাহারুল হক (১৮৯৯৮-১৯৭৯) - রাজনীতিবিদ ও মাদারীপুরের প্রথম লঞ্চ ব্যাবসায়ী।

* ইস্কান্দার আলী খান (১৯০১-৮৩) - বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ ও আইনজীবী, এম.এল.এ।

* ফফণীভূষণ মজুমদার (১৯০১-৮১) - এম.এল.এ, এম.পি.এ, মুজিবনগর সরকারের উপদেষ্টা কমিটির সদস্য, মন্ত্রী।

* দ্বারকাণাথ বারুরী (১৯০৬-৮৫) - যুক্ত বংগের ও পূর্ব পাকিস্তান মন্ত্রী, পাকিস্তান কন্সটিটিউশন কমিশন এর সদস্য (১৯৬০)

* ডাঃ গোলাম মওলা (১৯২০-৬৭) - ভাষা সৈনিক, এম.এল.এ, এম.এন.এ একুশে পদক (২০১০) প্রাপ্ত, বিশিষ্ট চিকিৎসক।

* ড. ফজলুর রহমান খান (১৯২৯-৮২) - বিশ্ববিখ্যাত স্থপতি, আমেরিকান ইঞ্জিনিয়ারিং রেকর্ডের "ম্যান অব দ্যা ইয়ার" ( ১৯৬৬,৬৯,৭১,৭২), মরণোত্তর স্বাধীনতা দিবস পুরস্কার (১৯৯৯) প্রাপ্ত।

* সুনীল গংগোপধ্যায় (১৯৩৪) - প্রখ্যাত কবি, উপন্যাসিক ও সাংবাদিক।

* প্রফেসর গোলাম ওয়াহেদ চৌধুরী - রাষ্ট্রবিজ্ঞান গবেষক ও সমাজসেবক, পাকিস্তান কনস্টিটিউশন কমিশনের অনারারি উপদেষ্টা (১৯৬১) ও কেন্দ্রীয় মন্ত্রী (প্রাক্তন)।

* রশিদ তালুকদার - (24/10/1939 - 25/10/2011) - বিজ্ঞান যাদুঘর (১৯৭৮) ও বি.পি.এস (১৯৮২) স্বর্ণপদক প্রাপ্ত ফটো সাংবাদিক।

* আভা আলম (১৯৪৭-৭৬) - সংগীত শিল্পি, মরোনত্তর একুশে পদক (১৯৭৮) স্বর্ণপদক প্রাপ্ত।

* ড. মুহাম্মদ আব্দুর রশিদ - (১৯৩৮-৬৯) - ভূ-ত্্ববিদ ও গবেষক।

* রাজিয়া মাহবুব -  বিশিষ্ট সাহিত্যিক।

* স্টুয়ার্ড মুজিবুর রহমান -  আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার ৩ নং আসামী ও মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক।

* মৌলভী আচমত আলী খান (১৯০৭-৯৩) - এম.পি.এ, এম.পি, বংগীয় গভর্নর মেডেল (১৯৪৩) প্রাপ্ত, মরণোত্তর স্বাধীনতা দিবস পুরস্কার (২০১৬) প্রাপ্ত।

*প্রফেসর ড. জিল্লুর রহমান খান - রাষ্ট্রবিজ্ঞান গবেষক ও লেখক।

* আব্দুল মান্নান শিকদার - ভাষা সৈনিক, প্রাক্তন এম.পি ও প্রতিমন্ত্রী।

* গোলাম মোস্তফা আখন্দ - ভাষা সৈনিক ও ব্রিটিশ বিরোধী আন্দলোনের সক্রিয় কর্মি।

* বাশার মাহমুদ - কবি, সাহিত্যিক, নাট্যকার, সাংবাদিক ও গবেষক।

* সৈয়দ আবুল হোসেন - বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ ও সাবেক যোগাযোগ মন্ত্রী।

* শাহজাহান খান - বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ ও নৌ পরিবহণ মন্ত্রী।

* আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাসিম - রাজনীতিবিদ ও এম.পি।

* বাসুদেব দাশগুপ্ত - হাংরি আন্দোলন এর বিশিষ্ট উপন্যাসিক।

* মোঃ নিজাম উদ্দিন আহমেদ - এডমিরাল, বাংলাদেশ নৌবাহীনি প্রধান (২০১৫)

* অধ্যাপক কবি আবুল হোসেন মিয়া - (১৯১৮-১৯৯৮) - কবি, শিশু সাহিত্যিক, শিক্ষক, অধ্যাপক এবং উপবিভাগীয় প্রধান,  বাংলা বিভাগ,  নটরডেম কলেজ (১৯৭৮)। অবনী সৃতি পদক কোলকাতা (১৯৩৮), শিশু সাথি পুরস্কার (১৯৪০), যশোর সাহিত্য সংসদ কতৃক "কবি শেখর" উপাধি লাভ (১৯৫২), গৌরবংগ সাহিত্য পরিষদ কোলকাতা কতৃক " কবি শেখর" উপাধি লাভ (১৯৫৪), মরণোত্তর মাদারীপুর জেলা শিশু একাডেমী কতৃক সম্মাননা (২০০৬) প্রাপ্ত।

                                                                                                                        সূত্র - উইকিপিডিয়া

প্রিয় পাঠক আমি আমার সাধ্যমত চেষ্টা করলাম প্রিয় মাদারীপুর এর ইতিহাস তুলে ধরতে।সবার দোয়া কামনা করি।

                                                                                                               মোঃ মাসুদ রানা খান
                                                                                                              এডমিন, Bangla Mail 21







No comments:

Post a Comment

Thanks Bro