Breaking News

আজকের তরুনেরাই আগামীর নেতৃত্ব। চাই চরিত্রবান ও সুশিক্ষিত জাতী।






শুধু শিক্ষিত হলেই জাতী উন্নতি করে না। জাতীর মধ্যে সু শিক্ষা থাকা আবশ্যক।



তরুন প্রজন্ম যদি হারিয়ে ফেলে তাদের চরিত্র তবে এটা একটা আশুনি সংকেত বলে মেনে নিতে হবে। সমাজের পরবর্তী নেতৃত্ব আজকের তরুনরাই দিবে। দেশ ও জাতীর যারা ভবিষ্যৎ তারা যদি মেধাহীন ও ত্রুটিপূর্ণ চরিত্রের অধিকারী হয় তবে দেশের ভবিষ্যৎ কি? সমাজের যারা নেতৃত্ব দিচ্ছেন তাদেরই দায়িত্ব ভবিষ্যৎ সৎ ও যোগ্য উত্তরসূরি তৈরি করা।

আজকে সমাজ ও তরুনদের বিশ্লেষন করলে যে রেজাল্ট আমরা পাই তা শুধুই হতাশার। একদিকে তরুন তরুণী ডুবে যাচ্ছে নেশায়। নিত্য নতুন সব নেশ দ্রব্য ও উপকরণ সমাজে ছড়িয়ে পড়ছে। আবার সু শিক্ষার অভাবে তরুন তরুণীরা চরিত্রের নিম্ন মানে পৌছে যাচ্ছে। যদি সবাই আজ সচেতন কিন্তু স্যাটেলাইট এর বাজে ও স্বাধীন ব্যাবহারে অপরাধ খুব সহজে বিনা বাধায় প্রবেশ করছে। শুধু শিক্ষিত হলেই জাতী উন্নতি করে না। জাতীর মধ্যে সু শিক্ষা থাকা আবশ্যক। আজকে আমরা শুধুই স্কুল কলেজ র সার্টিফিকেট ও একটি ভাল চাকরী পাওয়ার জন্য যত পরিশ্রম করে থাকি। এটা হয়েছে দেশের শিক্ষাব্যবস্থা ও বেকারত্ব এর দূষণ এর জন্য। কিন্তু নৈতিক যে শিক্ষার অভাব সমাজ ও সমাজের মানুষের মাঝে দেখা দিয়েছে তা পূরণ করা অতি জরুরী। দেশের আইন শৃংখলা ও অর্থনিতি উন্নতি সাধন করে কিন্তু তার সাথে সাথে কি অপরাধ ও অভাব কমে? অভাব মোচনে টাকা মূল সমস্যা না, মূল সমস্যা হল কাজের। কাজ না থাকলে মানুষের অভাব মোচন সম্ভব নয়। আইন যতই কঠিন ও শক্ত হবে অপরাধের ধরন ততই পরিবর্তন হয়। একদিকে কঠোর আইন প্রয়জন আর অন্যদিকে প্রয়জন আইন মান্য করার মানুষিকতা ও নৈতিকতা।

জোর করে কোন দিন মানুষের মনোভাব পরিবর্তন সম্ভব না। এর জন্য চাই সুশিক্ষা ও সচেতনতা। জাতী হিসেবে আমরা মোটেই সুশৃঙ্খল নই। সূযোগ পেলেই আইন ভঙ্গ ও আইন বিরোধী অনেক কাজ বেশিরভাগ মানুষ করে থাকে। আজ যদি সু শিক্ষা ও আদর্শ নিতিবান নাগরিক হত দেশের প্রতিটি জনগণ তবে দেশ ও জাতী উন্নতি করতে পারত। আমাদের দেশে মেধার যেমন অভাব নেই তেমন অভাব নেই প্রাকৃতিক সম্পদের। কিন্তু কেন আমরা উন্নতি করতে পারছি না? এর কারন আমরা নিজেরাই। প্রতিটা ক্ষেত্রেই চুরি ও রাজনিতি মিলেমিশে ম্যাসাকার হয়ে গেছে। অফিস গুলিতে ঘুষ বিহিন কোন কাজ করা সম্ভব না। একে অন্যকে শুধুমাত্র স্বার্থের জন্য ক্ষতি করতে দুইবার চিন্তা করে না। অসামাজিক কোন কাজ যদি কারো দারা সম্পাদিত হয় তবে তার বিপরীত আরো অনেকে অসামাজিক অপরাধ করে বসে। উদাহরণ দিলে বলা যায়.. যদি একটি চোর ধরা হয় তবে তাকে বেদম প্রহার করা হয়, সামাজিক ভাবে হেনস্তা করা হয়, জেল হাজতে প্রেরণ করিয়ে জেল খাটানো হয়। কিন্তু আসলে চোরটির চুরির পিছনে কি কারন সেটা কেউ খোজ করে না, তার যেটুকু অপরাধ তার চাইতেও কয়েক গুন বেশি শাস্তি সে পাচ্ছে। আর এর পেছনে যতজন থাকবে সবাই হেসে খেলে সামাজিক অপরাধ করে চলেছি কিন্তু তার বিচার নাই।


 নেতৃত্ব


সমাজের ছিচকে চোরে পেটাতে এ জাতী খুব উস্তাদ, কিন্তু একজন ঘুষখোর, বড় মাপের চোর কে সালাম দিয়ে চলে। মূল প্রবেলেম হল আমরা জাতী হিসেবে গোলামি ও নিজ চিন্তা এই দুই দিকে খুব দুর্বল।  শক্তের ভক্ত আর নরমের আতংক এ জাতী। তাইতো নিজেরা আজো অনেক নিচে পড়ে আছি।

আজকে নিজের সন্তানকে যদি সু শিক্ষা দেওয়া হয়, তাদের ব্যাপারে খোজ খবর রাখা হয়, কোনটা ভাল আর কোনটা মন্দ সেটা তাদের বোঝানো হয় তবে তারা বখে যায় না। সন্তানকে ভালবাসুন তাই বলে তাকে ল্যাপটপ, মোবাইল, বেহিসাবি টাকা ও ফ্রি ভাবে সবার সাথে মিশতে দিবেন না। সন্তানের ভবিষ্যৎ যাতে সুন্দর হয় তার জন্য সম্পদ বানাবেন ঠিক আছে কিন্তু টাকা পয়সার চেয়ে বড় সম্পদ হল সুশিক্ষিত সন্তান। এতে তার ভবিষ্যৎ বেশি সুন্দর হয়।


ভাল থাকবেন সবাই, আসুন আমরা সবাই সচেতন হই






No comments

Thanks Bro