Breaking News

নামাযে সুফল কেন পাওয়া যায় না! - Why the benefits of prayers are not available! - Bangla Mail 21






নামাযে সুফল কেন পাওয়া যায় না!


Md Masud Rana Khan
Bangla Mail 21



নামাজ
মহান আল্লাহ আমাদের ভালোবেসে সুন্দর এক ইবাদত উপহার দিলেন।এ ইবাদত হলো নামাজ। নামাজ আমাদের জীবনকে সুন্দর এবং সুশৃংখল করে তোলে। আত্নার অনেক উন্নতি সাধিত হয়।শরীর ও মনকে সজিব ও সতেজ করে তোলে। দেহকে কর্মক্ষম কররে সাহায্য করে। সামাজিক ক্ষেত্রে দারুন ভুমিকা রাখে নামাজ।নিয়মিত মসজিদে যাতায়াত এর ফলে একে অন্যের সাথে সুসম্পর্ক সৃষ্টি হয়। এছাড়া প্রভুর ভালোবাসা ও স্রষ্টার সাথে সম্পর্ক বাড়াতে নামাজের বিকল্প নাই।এছাড়া আরো অনেক ফজিলত রয়েছে এ নামাজে।

এখন প্রশ্ন হলো নামাজ থেকে প্রকৃত সুফল কি আমরা পাচ্ছি! নামাজ পড়ার পরেও কেন চরিত্র উন্নত হচ্ছে না? কেন সামাজিক বন্ধন উন্নত হচ্ছে না? জাতী হিসাবে কেন আজ দুনিয়ার বুকে লাঞ্ছিত? এই পেশ্ন গুলি অত্যান্ত কঠিন।

আসুন একটু পর্যালচনা করি।

মুসলিমরা আজকে আসলে নামাজ পড়ায় অভ্যস্ত না।নামাজ ছেড়েই দিয়েছে।আর যেটুকুই পড়া হয় তা আল্লাহ ও তার রাসুল (সঃ) যে ভাবে আদেশ করেছেন তা পুরাপুরি মানা হয় না।নামাজে থাকেনা একাগ্রতা, স্থিরতা, আল্লাহ ভীতি ও আল্লাহ প্রেম। আসুন আরো গভীর আলোচনা করা যাক।
ধরুন মসজিদে দেয়ালে ঘড়ি থাকে।এর ভিতরের যন্ত্রগুলি একটি অন্যটির সাথে যুক্ত ও জড়িত। এতে যখন ব্যাটারি দিয়ে কাজ করার জন্য অনুমতি দেওয়া হয় তখন তার সব যন্ত্রগুলি কাজ শুরু করে এবং এর ফলাফল প্রকাশ পেতে থাকে। এখন চিন্তা করে দেখুন ঘড়ি কেন বানানো হলো! সময় জানানো তার কাজ।তার যেটুকু কাজের সে সেইটুকুই করে।এখন ঘড়িকে যদি আপনি টাইম ভুলভাল সেট করে সঠিক সময় প্রত্যাশা করেন তবে সে কিভাবে তা দিতে পারে! 

ঘড়ির উদাহরণ দেওয়ার উদ্দেশ্য হলো বিষয়টা পরিষ্কার করে বোঝানো। ইসলাকে ঘড়ির মত মনে করুন।ঘড়ির উদ্দেশ্য যেমন সঠিক সময় নির্দেশ করা, তেমনি ইসলামের উদেশ্য এই যে মানুষ দুনিয়াতে আল্লাহর খলিফা বা প্রতিনিধি। নিজেরা আল্লাহর আদেশ নিশেধ মেনে চলবে এবং অন্যকে ও আল্লাহর বিধান অনুসারে পরিচালিত করবে।
এটা আল্লাহ সুরা আলে ইমরানে ১১০ নং আয়াতে পরিষ্কার বলে দিয়েছেন।

 "তোমরা সেই সর্বশ্রেষ্ট জাতি, যাদেরকে সমগ্র মানুষের কল্যাণের জন্য সৃষ্টি করা হয়েছে। তোমাদের কাজ এই যে, তোমরা সকল মানুষকে ন্যায় কাজের আদেশ করবে, সকল অন্যায় কাজ থেকে মানুষকে ফিরাবে এবং আল্লাহর প্রতি মজবুত ভাবে ঈমান রাখবে।"

সুরা আল বাকারা তে আল্লাহ বলেন ঃ

"আর এরূপে আমরা তোমাদেরকে (শ্রেষ্ট) জাতীতে পরিণত করেছি, যাতে তোমরা সকল মানুষ সম্পর্কে সাক্ষ্য দিতে পারো।"

ইসলামের সকল কাজের মধ্যে অন্যতম প্রধান কাজ হলো নামাজ কায়েম করা। নিজে নামাজ আদায় করতে হবে এবং অন্যকে আহবান করতে হবে। নামাজ ছাড়াও মুসলিমদের আরো অনেক কাজ আছে। চরিত্র ও জ্ঞানে হতে হবে উন্নত। ন্যায় পরায়ণ ও সৎ কাজ এর মাধ্যমে ইসলামের অনেক কাজ সমাধা করা যায়। আমরা যদি আমাদের অন্যান্য সকল কাজ সঠিক নিয়মে না করে শুধু নিয়মিত নামাজ আদায় করি  তবে সে নামাজ সুফল বয়ে আনবে না। আপনি নামাজ পড়লেন আবার মানুষদের ঠকালেন, আপনি নামাজ পড়লেন আবার পর্দা অমান্য করলেন, আপনি নামাজ পড়লেন আবার মানুষের সাথে খারাফ আচারন করলেন, আপনি নামাজ পড়লেন আবার খাদ্যে ভেজাল দিলেন, আপনি নামাজ পড়লেন আবার অফিসে বসে ঘুষ গ্রহন করলেন, সুদের সাথে জড়িত হলেন এবং আরো অন্যান্য ইসলাম বিরোধী কাজে জড়িয়ে পড়লেন তবে কিভাবে আপনি নামাজ থেকে সুফল আশা করেন? ঘড়িকে ব্যাটারি না দিয়ে টাইম দিতে বললে সে তা দিবে না। 

নামাজ থেকে সুফল প্রত্যাশা করার আগে আত্নসমালচনা করা দরকার কি ত্রুটি গুলি আমি করতেছি। কোন কাজ ইসলামের পক্ষে আর কি ইসলামের বিপক্ষে তা আলাদা করে তবেই আপনি সেগুলি থেকে ফিরে থাকবেন তাহলে নামাজ থেকে সুফল প্রত্যাশা করা যায়।








No comments

Thanks Bro