Breaking News

একটা ঘটনা বলি | Say an incident | Bangla Mail 21








কিছুদিন আগে আমি বাসে করে ঢাকা হইতে মাওয়া গঘাটে আসতেছিলাম।আমি খেয়াল করলাম আমার ঠিক সামনের সীটের ছেলেটি দাড়িয়ে দাড়িয়ে সুপারভাইজারের জন্য অপেক্ষা করছিল। সুপারভাইজার তখনো অনেক সামনের দিকের সীট গুলোতে টিকেট চেক করছিলেন; তার জন্য এত আগ বাড়িয়ে এভাবে অপেক্ষা করার কী মানে হতে পারে? আমি বেশ অবাক হয়ে তাকে সরু চোখে খেয়াল করতে শুরু করলাম। 

সুপারভাইজার যখন ছেলেটির কাছে এল তখন কিছু জিজ্ঞাসা করার আগেই ছেলেটি মাথা দিয়ে তার প্যান্টের একসাইডের পকেটের দিকে ইশারা করে বলল, টিকেট পকেটে রাখা আছে, বের করুন। সুপারভাইজার পকেট থেকে টিকেট বের করতে করতে দেখে নিল- ছেলেটির দুটো হাতের একটাও নেই। 

ডানদিকের হাতটা একদম গোড়ালি থেকে কাঁটা থাকলেও বাম হাতের কনুই তার একমাত্র কাজ করার সম্বল। দুটো হাতের একটাও না থাকলে একটা মানুষ একা কীভাবে কাজ চালিয়ে নেয় সেটা বোঝার জন্য পুরো জার্নিতেই আমি এই ছেলেটিকে লক্ষ করছিলাম। 

এই ছেলেটির দুটা হাতের বদলে শুধু একটা অর্ধেক কনুই আছে তবু কিন্তু সে সেটা নিয়েই তার মত করে কাজ চালিয়ে নিচ্ছে। আমি তাকে এই অর্ধেক কনুই দিয়ে জানালা খুলতে এবং বন্ধ করতে দেখেছি। পুরো জার্নিতে দু-একবার তাকে বাইরের কোন দৃশ্য দেখে হাসতেও দেখেছি। 

একটু একটু করে সে হয়ত তার মত করে খাপ খেয়ে স্বাভাবিক হয়ে যেত। কিন্তু এই যে সে স্বাভাবিক হতে পারছে না, এই হীনমন্যতার কারণ তার দুটা হাত নেই এই জন্য না, এর কারণ রাস্তায় এরকম কাউকে দেখলেই আমরা তার দিকে সীমাহীন কৌতূহল এবং করুণা নিয়ে তাকিয়ে থাকি। রাস্তায় বের হলে যদি আশে পাশের সব মানুষ আপনার দিকে ফ্যালফ্যাল করে তাকিয়ে থাকে আপনি কী স্বাভাবিক থাকতে পারবেন ? 

সুপারভাইজার আসার অনেক আগে থেকেই কেন এই ছেলেটি এমন হীনমন্যতা নিয়ে দাড়িয়ে ছিল , ব্যাপারটি অবজার্ভ করতে গিয়ে আমি বুঝলাম- যে কারণে আমি কৌতূহুলী হয়ে তাকে দেখছিলাম- সেই কৌতূহল দৃষ্টিই আসলে তার হীনমন্যতার কারণ। 

অন্যএকটা ঘটনা বলি....
 
হাইকোর্টে যাওয়ার পথে একদিন সাতসকালে ফুটওভার ব্রীজ দিয়ে যাবার সময় একটা দৃশ্য দেখে আমাকে থেমে যেতে হল। একটা টোকাই কাঁথা মুড়িয়ে ঘুমোচ্ছে;অনেকেই তাকে ডিঙ্গিয়ে সামনে পা ফেলছে মোটামোটি চিরচারিত একটা দৃশ্য। 

কিন্তু হঠাৎই একজন তার ঘুমন্ত শরীরের বুকে পাড়া দিয়ে আবার এককদম পিছু হটলেন। আকস্মিক নিষ্ঠুরতায় ছেলেটি কাঁথার উপর থেকে তার মাথা বের করল। সে হয়ত কিছু একটা বলতে যাচ্ছিল; কিন্তু লোকটিকে দেখার পর টু শব্দটি না করে সে আবার কাঁথা মুড়িয়ে শুয়ে পড়ল। কেননা লোকটি অন্ধ ছিল ! 

রাস্তার একটা টোকাই , যে কিনা আধমরা অবস্থায় ফুটওভার ব্রীজে শুয়ে থাকে সেও জানে তার চাইতেও অসহায় মানুষ এই ফুটওভার ব্রীজ দিয়েই হাঁটা চলা করে। নিজের জীবনের প্রতি এইযে আমাদের  এত বিতৃষ্ণা, আমাদের অবস্থা কী তাদের চাইতেও খারাপ ?






No comments

Thanks Bro