Breaking News

Bitcoin কি? What is Bitcoin (BTC)? | Bangla Mail 21




Bitcoin কি?  What is Bitcoin (BTC)?





বিটকয়েন হলো ভার্চুয়াল কারেন্সি বা মুদ্রা। যে কয়েনটি বেশ কয়েক বছর ধরে আলোচিত। বিটকয়েন নিয়ে অনেকেই অনেক ভাবে জানার চেষ্টা করেছেন।।আমিও আমার মত করে চেষ্টা করে আমার যা অভিজ্ঞতা হয়েছে তা আপনাদের সাথে শেয়ার করলাম। 







Bitcoin (BTC) কি? 

 BTC বা বিটকয়েনহলো একটি ডিজিটাল মুদ্রা বা ক্রিপ্টো কারেন্সি অথবা ইলেকট্রনিক মুদ্রা। এই কয়েন অত্যান্ত সূক্ষ্ণ ও শক্তিশালী গানিতক কোডিং এর মাধ্যমে বানানো হয়েছে এবং নিয়ন্ত্রিত হয়ে   থাকে। এই কারেন্সির অবাক করা বিষয় হলো এর উপর গভমেন্ট কোন  নিয়ন্ত্রণ রাখতে পারে না। এটা হাজার হাজার শক্তিশালী কম্পিউটার দারা   নিয়ন্ত্রিত। যারা এর নিয়ন্ত্রণ রক্ষা   করে তাদের (মাইনার) Miners বলা হয়। এই কারেন্সি যেহেতু অনিয়ন্ত্রিত তাই হ্যাকার ও ডার্কওয়েবে এটি খুব জনপ্রি।  যদিও কয়েনটা বেয়াআইনি বলে ঘোষিত না তবুও এর কিছুটা দুর্বলতা আছে। যেমন লেনদেন এর ক্ষেত্রে মাইনার দের এপ্রুভ এর জন্য দাতা ও গ্রহিতাদের অপেক্ষা করতে হয়। এই মাইনার কে ৩য় পক্ষ বললেও ভুল হবে না।

Bitcoin (BTC) সৃষ্টি কিভাবে? 

বিটকয়েন কে বা কারা আবিষ্কার করেছিলেন তার  সুস্পষ্ট ধারণা কেউ দিতে পারেনি। তবে ২০০৮ সালে অক্টোবর মাসে    সাতোশি নাকামোতো (Satoshi Nakamoto) ছদ্মনাম ইউজ করে একটি গবেষণার রিপোর্ট প্রকাশ করেন, যার ধারনা ছিলো এমন " Bitcoin - A Peer to peer Electronic Cash   System".  এই গবেষনায় তিনি ধারনা দেন কিভাবে কোন ব্যাংক বা মধ্যস্থতা ছাড়াই পৃথিবীর যে কোন প্রান্তে লেনদেন করা যাবে। এই পদ্দতি পেয়ার টু পেয়ার ট্রাংজেকশন করা সম্ভব।  

২০০৯ সালের জানুয়ারি মাসেই   Bitcoin (BTC) বাজারে প্রথমে আসে। সাতোশি নাকামোতো প্রথম বিটকয়েন মাইনিং করার জন্য সফটওয়্যার তৈরি  করেন। সাতোশি নামটি ইউজ করেই বিটকয়েনের এককের নাম হয় সাতোশি। 10,00,00,000 ( দশ কোটি)  সাতোশি = 1 BTC 
যার বাজার মূল্য  1 BTC =  3660$ (18/03/2019)

Bitcoin (BTC) এর ব্যাবহার ঃঃ

এই কয়েন একটি ভার্সুয়াল মুদ্রা। এর মূল্য ম্যানুপুলেট করার দরকার হয় না। এই কয়েনের আচারন অনেকটা স্বর্নের মত। এর মূল্য বাড়া কমা নিজে থেকেই হয়ে থাকে। বিটকয়েন অনেকে জমিয়ে রেখে লাভবান হয়েছেন। কিন্তু এর মূল্য কমে গেলে অবশ্যই লস হবে। 

বিটকয়েন ব্লক চেইনের (Blockchai)   মাধ্যমে    পরিচালিত হয়ে থাকে। ব্লকচেইন অত্যান্ত সাধারন হিসাব । প্রত্যেক ইউজার ও তার বিটকয়েন ওয়ালেটের জন্য ব্লক চেইন আলাদা হয়ে থাকে। লেনদেনের প্রমান হিসাবে কয়েন ট্রানজেকশন আলাদা হিসাব হয়ে থাকে। এই প্রক্রিয়া জালিয়াতি রোধ করতে সাহায্য করে। বিটকয়েন এড্রেসটি প্রায়সই চেঞ্জ হয়ে তাকে৷ কোন ব্যাক্তিগত নাম ইউজ হবে না। এর ভিন্ন কোডিং আকার প্রকাশ পায়। যা পরিচয় গোপন করতে খুব সহায়ক। আপনার ট্রানজেকশন হিস্ট্রি   দেখা যাবে তবে আপনার তথ্য সেখানে থাকবে না। 

কোন বিটকয়েন সেন্ড হলে তা পেন্ডিং থাকে৷ যদি কোন মাইনর এটাকে এপ্রুভ না করে তবে লেনদেন সম্পন্ন হবে না। মজার বেপার হলো যদি আপনার খুব শক্তিশালী একটি কম্পিউটার থাকে তবে আপনিও মাইনর হতে পারবেন।     

যেকোনো দেশের কারেন্সি সেদেশের সরকার নিয়ন্ত্রণ করে থাকে৷ প্রয়োজন হলে নতুন মুদ্রা বানানো সরকারে জন্য কোন বেপার না। কিন্তু বিটকয়েন এর ক্ষেত্রে এমন নিয়ম নাই। এই কয়েন তৈরির সীমা আছে। সারা বিশ্বে ২১ মিলিয়ন বিটকয়েন উৎপাদন হলেই এর মাইনিং অটোমেটিক বন্ধ হয়ে যাবে। 

বিটকয়েন 0.10$ মূল্য শুরু হয়ে  সর্বোচ্ছ 19364.47$ এ পৌছে যায় 1 BTC এর মূল্য। (01/12/2017)

বিটকয়েন বর্তমানে খুব জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। বিভিন্ন সাইটে পেমেন্ট হিসাবে বিটকয়েনকে এপ্রুভ করা হচ্ছে। 

Bitcoin (BTC) এর কিছু সুবিধা

1. লেনদেন সরকার নিয়ন্ত্রিত নয়।
2. ব্যাংক বা প্রতিষ্ঠান এর নিয়ন্ত্রণ নিতে পারেনি
3. লেনদেন এর ক্ষেত্রে পরিচয় গোপন থাকে
4. অল্প সময়ের মধ্যে পৃথিবীর যেকোন প্রান্তে লেনদেন করা যায়।
5. জমিয়ে অনেক ক্ষেত্রে লাভবান হওয়া সম্ভব

Bitcoin (BTC) এর কিছু অসুবিধা

1. ট্রানজেকশনে অনেক সময় দেরি হতে পারে।
2. বেইনিভাবে ইউজ হয়ে থাকে
3. মূল্য অফেরতযোগ্য
4.বিটকয়েন ওয়ালেট ডিজেবল হলে সমস্ত সম্পদ হারাতে হতে পারে।
5. অতিরিক্ত ভলাটালিটি
আজ আর এই বিষয় নিয়ে কিছু বলবো না। আবার কথা হবে কিভাবে ফ্রিতে বিটকয়েন আয় করবেন সে বিষয়।।ভালো থাকুন সবাই।  




 

No comments

Thanks Bro